সূচীপত্র প্রথম পরিচ্ছেদ গ্রকরণ।

বিস্তাশিক্ষা ...

আগ্নেয়গিরি ...

দয়া

সিদ্ধঘোটক ...

বীবর

তরুণ-বয়স্ক ব্যক্তিদিগের গ্রতি উপদেশ

দ্বিতীয় পরিচ্ছেদ জলপ্রপাত ... | সন্তোষ পৃথিবীর আকার কুসংসর্ণ পুরুদুজ পৃথিবীর পরিমাণ

বৃক্ষ লতা্দির উৎপত্তির নিয়ম

১১

১৩

১৩৬

নও

৮৬৬,

৩২

৩৯

পবন্ধ-পাঠ

শ্রীপুর্ণচন্দ্ দে, বি.

প্রণীত |

৫.7762617 :

৮৮717917171) 13 তার ঘেঞ। 20178 মঢই)] 10/1 0017 49

এ)

শে বন) এঠ 07৬ 024, 07৬0৮৯08৯45 2107৭ ৮1১৮৪,

38578] [37009 /১৪। (00500707881 0178 তি,

7890.

বিজ্ঞাপন |

বিদ্যালয়ের বালক বালিকাগণের পাঠোপযোগী করিয়। “গরবন্ধ-পাঠ” লিখিত হইল ইহাতে নৈতিক, এঁতিহাসিক জীবন-বৃত্ব-বিষয়ক ১৯টী প্রবন্ধ সপ্নিবেশিত হইয়াছে গ্রস্থের শেষভাগে ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর মহাশয়ের সংক্ষিপ্ত জীবনচরিত দেওয়া গিয়াছে যিনি বর্তমান শতাব্দীর প্রারস্তকালীন অপরিস্ফ্ট ক্ষীণকলেবর বাঙ্গালা ভাষার পরিক্ফোটক পরিপোষক, ধিনি তৎ্কালোচিত ব।ঙ্গাল৷ ভাষার দুর্গম জটিল পথ উন্মুক্ত করিয়া তাহ] এক্ষণে স্থগম সহজ করিয়! তুলিয়া- ছেন, যিনি জ্ঞানান্ধ বাঙ্গালী বাঁলক-বালিকাগণের জ্ঞান-চক্ষু উন্নীলন করিয়! জীবনের সার্থকতা সম্পাদন করিয়াছেন, ঘিনি বর্তমান বাঙ্গাল! ইংরাজী ভাবা শিক্ষার বহু প্রচারের অন্যতম কারণ, যিনি নিরাশ্রয়! বঙ্গ-বিধবার অশ্রমোচন করিতে একদিন প্রাণ-সংকর করিয়াছিলেন, সেই ন্বদেশ-হিতৈষী মহাত্মার জীবন- চরিত পাঠ না করিলে বাঙ্গালী সন্তানের প্রত্যবার আছে ভাবিয়া এই গ্রন্থে তাহার জীবনচরিত সন্নিবেশিত হইল। “প্রবন্ধ-পাঠ"-রচনার ভাষ। প্রাঞ্জল করিতে যথানাধা প্রয়াস পাইয়াছি। গ্রন্থখানি বিদ্যালয়ের পাঠ্য পুস্তক রূপে পরিগণিত হইলে, এবং বালক বালিকাগণ ইহ! পাঠ করিয়া নানা বিষয়ে জন লাভ স্বীয় চরিত্র সংগঠন করিতে পারিলে গ্রন্থ প্রণয়নের উদ্দেন্ত সার্থক পরিশ্রম সফল হইবে

ভদ্রকালী ২৯শে অগ্রহায়ণ, ১২৯৭

ীপুর্ণচন্দ্র দে!

নুচীপত্র

প্রবন্ধ

বিদশিক্ষা

শান্ত্রচর্চ। জ্ঞানলাভ

আক্বাবলম্বন

অধ্যবসায়

স্বাস্থ্য

শৈশব

ষৌবন

বার্ধক্য দহ

কুপণতা -*"

মিতব্যয়িতা

নীতিকখ! দৃষ্াত্তমাল!

হিন্দুজাতির যোগবল হরিদাস যোগী জাহাঙ্গীর বাদসাহের দরবার স্যার টমাস রোর দৌত্য

আরঙ্গজীব তৎসাময়িক বৃত্তান্ত ... কবি ভারতচন্ত্র রায় গুণাকর

সাধক রামপ্রসাদ সেন

প্ডিত মদনমোহন তর্কালঙ্কার ডাক্তার ছুর্গাচরণ বন্দ্যোপাধ্যায় পিত ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর

পঞজাহ

১১ ১৪

১৭

প্রবন্ধ-পাঠ।

বিষ্ভাশিক্ষা |

বিদ্যা! অমূল্য ধন| তর্গরে যাহ! অপহরণ করিতে অদমর্থ, দ।য়াদগণ যাহার অংশ গ্রহণে অক্ষম,মহ্থামূলা মণিমুক্তার্দির বিনি- মধেও যাহা প্রাণ্ড হওয়া অসম্ভব, যথেচ্ছ ব্যয় করিলেও যাহার অধুমত্র ক্ষয় না হইযা উত্তরোশুর বুপি ভইন| থাকে, এবং যাহা ন। থাকিলে মনুষ্য মনুব্য-পদ-বাচ্য নহ্ে,তাহ| অপেক্ষা দূলাবান মারগর্ভ সামগ্রী জগতে অ।র কি আছে! বিদ্যার কি মনো- ভারিব পূর্তি! বিঘানের মুখমণ্ডল অন্ুপম স্বর্গীয় যৌনর্যে বিছুষিত, হদয়ভাওার বহুনুল্য রদ্রমালায় স্সক্জিত, এবং চিন্ত- চকোর ইতর-গ্রাণি-ভোগ্য অকিঞিৎ্কর বিষয় পরিহার পূর্ব্বক জ্ঞান-কৌনুদীর জন্ প্রধাবিত। নিকুষ্ট-স্খ-প্রযালী বিগ্াহীনের চিন্ত-কুটার যেরূপ ঘোর অজ্ঞান-তিমিরে নমাচ্ছন্ন থাকে, বিশুদ্ব-্খাভিলাধী বিদ্বানের চিনত-প্রাদাদ সেরূপ নিরবচ্ছিন্্ ্ানালোক-্রদদীপ্ত ইইয়! চির বিরাজ করিতে থাকে। বিদ্যা" ক্ষায় ধন্মজ্যোতিঃ বিকীর্ণ, বিচারশক্তি মার্জিত, চিন্তাশক্তি ঘাঁদ্ধিত, মানসিক বৃত্তিসকল উত্তেজিত কুসংস্কার পরস্পর!

প্রবন্-পাঠ

তিরোহিত হয়; এবং ভাবী সম্পদ বিপদ্‌ পূর্বে প্রত্যক্ষ করিয়! সংকার্ষ্য প্রবৃত্তির অসত্কার্ধ্যে শিবৃত্তির সবিশেষ ক্ষমতা জন্মে বিদ্ঞাশিক্ষা অশেষ স্থুখের নিদান। সাংসারিক কার্ধযাজালে জড়িত উত্পীড়িত হইলে বিরলে বসিয়া শাস্ত্রান্থশীলন দ্বার! অতি স্খে সময় অতিবাহিত কর। যায়। জ্রশিক্ষিত বাক্তির অন্তঃকরণ নিরভ্তর অসঙ্খ বিষয়ের অসংখাভাঁবে পরিপূর্ণ যাঁহ। ইতর সাধারণের প্রত্যক্ষ হইলেও নেত্র-বহিভূতি, তাহ তাহার অপ্রত্যক্ষ হইলেও বোধ-মেত্রগোচর। তিনি ভূলোকবাসী হইয়াও আকাশমার্ণে বিচরণ করিতে থাকেন | উত্তাল-তরঙ্গ- ময বিশাল বারিধি-বক্ষঃ, তুষার-মণ্ডিত ছুর্গম গিরিশুঙ্গ, ভূগর্ভ- নিহিত অত্াঞ্চ ধাভুনিঃঅব শুন্যদেশে প্রচণ্ডবেগে ঘৃণ্যমান জাঁতিফমণ্ডল ইতাদির বিষয় পর্ধযালেচন| করিয়। তিনি সস্তোষ- সাগরে নিমগ্র হন একাসনে বসিয়! কল্পনা! বলে তিনি ত্িভুবন পর্যটন করিষা আদিতে পারেন, নেত্রনিমীলন করিয়া নিখিল ব্রহ্মাণ্ডের যাবতীয় কার্যকলাপ চক্ষুর সম্মুখে দেখিতে পান। বিদ্যা, ধৈর্যা, ক্ষমা, বিনষ, শিষ্ুতা প্রভৃতি সদগুণ পরম্পরা শিক্ষা দিয়া থাকে কিরূপ নিয়ম অবলম্বন করিলে শরীর সুস্থ সচ্ছন্দ রাখিতে পারা যায়, পিতা মাতার প্রতি ভক্তি শ্রদ্ধ প্রকাশ করিয়! কিরুপে তাহাদিগের সন্তোষ সাধন করিতে হয়, ক্িরূপে পরিবার প্রতিপালন সম্ভানদিগকে শিক্ষা দান করিতে হয়, এবং কিরূপেই বা আল্মী়, বন্ধু অপর সাধারণের সহিত বাবহার করিতে হয়, বিগ্ান্থুশীলন ব্যতিরেকে তাহ সম্যক্র্ূপে

বিদ্যাশিক্ষ। |

অবগত হওয়া স্ুকঠিন। বিগ্যাশিক্ষার অভাবেই পর্ণকুটীরাশ্রয়ী অসভা, বর্ধর জাতি. স্মুরম্য-প্রাসাদ-নিবাসী, স্ুুসভ্য, ন।গরিক লোক অপেক্ষ। নিক হিনাবস্থ। বিদ্যাবলে সভ্য জাতীয় লোকেরা সুখ স্বচ্ছন্দ সংসার যাত্র। নির্ধাহোপযোগী নানাৰিধ উপায় উত্তাবিত করিয়! রাখিয়াছেন | বাশ্পীয়পে।ত, বাম্পীয়রথ ব্যোমযান প্রভৃতি নানাবিধ অদ্ভুত যন্ত্র নিশ্বীণ করিয়। জলে, স্থলে শৃন্যদ্দেশে বিচরণ করিবার কত দূর সুবিধা করিয়। দিয়াছেন; অণুবীক্ষণ, দৃরবীক্ষণ, দিগ্র্শন, তাঁপমান, বায়ুম[ন তাড়িত-বাত্তীবহ প্রভৃতি বিজ্ঞন-যন্ত্র সকল আবিন্কৃত করিধ। ছুতসাধা বিষয়ও স্ুসাধা করিএ। তুলিয়াছেন ; বন্্রমন্ত্র গোধুম-মন্ত্ সুদ্রাধন্ত্র প্রভৃতি কত শত শিল্পযন্ত্র নিন্মীণ করিয়। মানব মগুলীর মহোপকার নাধন করিয়। আসিতেছেন ; সেতু, স্ুরঙ্গ, প্রণালী প্রশস্ত পথ প্রস্তত করিয়! শিল্পনৈপুণ্যে্র অদ্ভুত মহিমা প্রদর্শন করিয়াছেন

মুর্খ ধনী পরম ধনে বঞ্চিত। সে চক্ষু থাকিতে অস্থা, কর্ণ থাঁকিতেও বধির, অলঙ্কৃত হইলেও নিরলঙ্কার। ন্ুবেশ-পরি- ধায়ী মূর্খ দূর হইতে সুন্দর, কিন্ত নিকটে আদিলেই কুৎ্দিত দেখায় অলঙ্কার পরিচ্ছদ্দ-পরিপাটীর গর্ব করিলে চিন্তের লঘ্ঘুত৷ প্রকাশ হয়। যে ব্যক্তি সুদৃশ্ঠ বস্ত্র ওন্ম্রম্য অলঙ্কার পরিধান করিয়। আপনাকে বড় জ্ঞান করে, অন্যকে আপনার অপেক্ষা উৎকৃষ্ট বস্ত্র জলঙ্কার পরিতে দেখিয়| ক্ষুব্ধ ত্রিয়মাণ হয়, সে অতি অনার এরূপ লোক কাহারও আদরণীয় নহে, এবং সারবান লোকেরাও তাহার সহিত বাক্যালাপ করিতে পরাদ্মুখ হন। যদি ধনলোতী স্তাবকের!

প্রাবন্ধ-পাঠ।

্বীয় অভীই-নিঞ্জির জন্ প্রত্যক্ষে তাহার যশোগুণ কীর্তন করে, তথাপি পরোক্ষে তাহার নিন্দা করিতে কিছুমাত্র কুঠ্ঠিত হয় না। ধনোপার্জন বিছ্যাশিক্ষার মুখ্য উদ্দেশ্য নহে। যাহার! এরূপ মনে করেন, তাহার। কখনই বিদ্যার প্রকৃত শ্বাদ গ্রহণ করিতে পারেন নাই। অতএব কি ইতর, কি ভদ্র, কি ধনী, কি নির্ধন, কি বালক, কি বৃদ্ধ,কি নর, কি নারী সকলেরই এতাদ্বশী সর্বহিতকারিণী বিদ্যাশিক্ষার অন্শীলন কর! বর্ব্বতো- ভাবে বিধেয়।

শাস্ত্রচর্চা জ্ঞানলাভ |

জ্ঞানই বিদ্যাশিক্ষার মুখ্য উদ্দেশ্ত শান্ত্রচ্চার চরম ফল জ্ঞান অপেক্ষ। শ্রেষ্ঠ গুরুতর সামগ্রী জগতে আর দ্বিতীয় নাই। নিরন্তর শান্্পাঠ করিলেই জ্বানোৎ্পন্তি হয়, এরূপ নহে? ওষধ স্ুসেবিত ন! হুইয়। কেবলমাত্র নাঁমোচ্চারিত হইলেই রোগের উপশম হইতে পারে না নীতিজ্ঞ হইয়া নীতি- জ্ঞের অনুরূপ কার্য না৷ করিলে নীতি-শান্ত্রপাঠ বিড়ম্বনামাত্র। ধাহার। নীতি-শান্ত্রপাঠ করিয়। নীতি-বাক্য গুলি কাধ্যে পরিণত কবেন, তাহারাই যথার্থ বিদ্বান জ্ঞানবান্‌। জ্বানবৃক্ষ হৃদয়ে অস্থরিত, জিহ্বায় পুষ্পিত কাধ্যে ফলিত হইয়া থাকে | যাহা স্ঞাষা তাহার সম্যক জ্ঞান পরিগ্রহণ, এবং যাহ। অন্যায় তাহার নির্বাচন পরিবজ্জন করাই জ্ঞানোঁৎ্পত্তির প্রথম পরিচায়ক | ঘাহার কার্ধ্য কথার অঙ্গুরূপ, ধিনি শ্বল্পনূল্যে চিরনির্মল চির- স্থায়ী নখ ক্রয় করিতে পারেন, যিনি ধনী হইয়াও নম্র দরিদ্র হইয়াও উন্নত, এবং তুবৃত্ত ষড়রিপু যাহাকে কখনও অভিভূত

শান্ত্রচচ্চা জ্ঞানলাভ | পু

করিতে পারে না, তিনিই প্রকৃত জ্ঞানী|। আক্ম-সংযম-শখক্তি বাহার বলবতী; অক্রিই পরিশ্রম অনন্ত অধ্যবসায় ধাহার নিত্য প্রিয় সহচর ; যিনি সত্যনিষ্ঠ, জিতেন্দরিয়, স্থিরগ্রুতিজ্ঞ কাধ্যকুশল $ এবং পরনিন্দা, পরদছেষ, পরধনাপহরণ প্রভৃতি কুকর্ম গুলি ধাহার নিকট কখনও স্থান লাভে সমর্থ নহে, তিনিই যথার্থ জ্ঞানবান্‌।

শান্ত্রর্চ। এক প্রকার নিশ্বল অনির্ধচনীয় আমে'দ। অবস্থ।-বৈগুণ্যে পড়িয়া! মন বিরক্ত ডউৎ্পীড়িত হইলে নিজ্জনে বলিয়া গ্রন্থপাঠ দ্বারা অতি সুখে সময় ক্ষেপ কর] যাইতে পারে। বাক্পটুত। শান্রপাঠের অন্যতম ফল। নানাবিধ গ্রন্থ আ!য়ন্ত থাকিলে যুক্তি সুক্তি সম্বলিত বচন-পরিপাটী ছারা »শাহবর্ের মন দ্রবীভূত করিয়! যে কোন বিষয়ে তাহাদিগকে প্রবর্তিত, উত্তেজিত প্রণোদিত কর। যাইতে পাত্রে বক্ত ত- কালে প্রন্তাবা বিষয় অ'তরঞ্জিত করিয়! বর্ণন। কর। এবং ত। বপক উৎ্প্রেক্ষ। প্রভৃতি অলঙ্কারে স্সঙ্জিত কর। পাণ্ডিা- শ্রকাশ-মাত্র বিচারকালে কথার কথায় শাস্ত্রীয় উদাহরণ প্রদর্শন করাও অবিজ্ঞের কাধ্য। শান্ত্াহুশীলমে বৃদ্ধিশক্জি পরিমাজ্জিত বিচারশক্তি পরিবদ্ধিত হয়

অর্থেপার্জন শান্তরচচ্চার চরম ফল নহে; উহা ত।»1র অবান্তরমাত্র। ধূর্ত, মূর্খ নান্তিকেরা শান্ধে দ্বেব অশ্রদ্ধা করে ; সরলচিন্ত লোকের। তাহাতে শ্রদ্ধা! ভক্তি প্রকাশ করি থাকে ; এবং বুদ্ধিম।ন্‌ বিচক্ষণ ব্যক্তির! কাধে পরিণত করিয়া তাহার সার্থকত। সম্পাদন করেন

মন্মগ্রহণে অন্ধ হইয়৷ পুস্তক পাঠ কর। অবিবেচনার ক্ষ

শু গ্রবন্ধ-পাঠ ]

বিরলে বপিয়! পরিচিস্ন না করিলে তাহা ফলোপধারক নহে সময়ে নময়ে সাংসারিক কাধাকলাপ পর্যাবেক্ছণ করিয়াও বিজ্ঞ হইতে হয়। কারণ, জগতের ব্যবস্থ| বাবহার দেখির। আমর! অনেক বিষয়ে শিক্ষা লাভ করিতে পারি।

শান্্ নানাবিধ তন্মধ্যে কতকগুলির কেবল ন্বাদগ্রহণ করিতে হয়; কতকগুলি উদরস্থ করিতে হয়; কতকগুলি ব| চর্রিত, রোমন্থিত জর্ণ করিতে হয়। অর্থাৎ কতক গুলি অংশতঃ পাঠ করিতে হয়; কতকগুলির আদ্যন্ত প|ঠ কর আবশ্যক; এবং কতকগুলি প্রগাঢ় মনোনিবেশ পূর্বক অধাদন তাহার অর্থবোধ করা সবিশেষ কর্তব্য এরূপ কতকগুলি পুস্তক আছে যে কেবলমাত্র তাহার দার সংগ্রহ করিয়া রাখিতে হয। কিন্ধি উচ্চশ্রেণীস্থ গ্রন্থ সকল মূল দেখিয়াই পাঠ কর। উচিত পরিক্ত জল পরিক্রত পুস্তক উভষ্ই তুল), কারণ উভফ্ই বিঙ্গদ অভূপগ্তকর |

বন্ৃজ্ঞতা-লাভ শস্ত্াহুশীলনের অন্যতম ফল নানাশাপ্র পাঠে বহুদশ্শী হয়, অন্তের সহিত আলোচন। করিলে উপস্থিত বন্ত! হয় এবং রচনাশক্তির বিল্ক্ষণ পরিপুর্টি জন্মে। ভিন্ন ভিন্ন রূপ ব্যায়াম পরিশ্রম করিলে যেরূপ ভিন্ন ভিন্ন অঙ্গ পরিচালিত পরিপুষ্ট হয়, বিভিন্ন প্রকার শান্তর অধ্যয়ন করিলে তাঙ্থার ফলও সেইরূপ বিভিন্নপ্রকার হইয়! থাকে পুরাবৃক্ত- পাঠে বিজ্তা বহুদর্শিতা জন্মে। সাহিত্য-পাঠে বচন-চাতূর্য্য রচনা-নৈপুণ্য লাভ হয়। বিজ্ঞান-খাহ-পাঠে গাল্ভীয্য এবং নীতি-শান্-পাঠে লশীলত। ধন্খজ্ঞান জন্মে তর্ক-শাস্ত্র-পাঠে বাদ-নৈপুণ্য বিচার-শক্তির মম্যক উন্মেষ হয়। চপল-চিন্ড

শান্ত্রচর্চ। জ্বানলাভ |

ব্যক্তির গণিতশান্ত্র অ্যয়ন কর আবশ্ঠক গণিতের প্রক্রিয়ায় কিছুমাত্র ভ্রম হইলেই প্রতিজ্ঞাউৎ্পত্তি অসম্ভব হইয়া উঠে স্থতরাং তৎ্কাঁলে পুনর্ধার তাহা মূল হইতে আরম্ভ করিতে হয়। পুনঃ পুনঃ এইন্রপ করিলে চিত্তচাপল্য দূরীভূত হইয়। একা গ্রত। সংসাধিত হয়। স্থুলবুদ্ধি ব্যক্তির স্ভার়শান্প অধায়ন করা উচিত। তর্কবিস্য! অধ্যয়ন করিলে হৃম্মাহসন্ধান প্রযৃত্ত বুদ্ধির স্থুলতা জড়ত। ন্ট হইয়! যায়॥ ব্যবহারশান্ত্রে অধি- কার থাকাও বিলক্ষণ আবম্টক। কারণ, উহা অত্যন্ত উপ- যোগী উহ!তে দাত প্রমাণ প্রয়োগ দ্বার অভিমত বিষয় গ্রতিপন্ন কর। যাইতে পারে

আত্মাবলম্বন |

পর-যাহাষ্য ন! লইয়। আপনার উপর নির্ভর করিয়। কাব? করার নাম আম্মীবলম্বন। যাহার আআ্মাবলম্বন নাই, ষে পর্ধদ1ই পর-প্রত্য।পী, যাহার আলন্যে জন্ুুরাগ শ্রমে বিরাগ, যেবিপদে অধীর অভাবে অনহিষুর, যাহার প্রত্যেক কাবাই শৈথিল্য ওদাসীন্ত, এবং ধে পদে পদে দৈবের উপর নির্ভর করিয়া ত্বয়ং নিশ্চেই হয়! বসিয়া থাকে, নেই ব্যত্তিই যথার্থ কাপুরুষ আদ্মাবলম্বনই সনুন্নতিলাভের নর্ধপ্রধান উপার। উহার ফল যেরূপ ন্মুমধুর,সর্বাক্ষ পু সর্ববাঙ্গন্নার,পরাবলন্থমের ফল কখনই সেরূপ নহে আন্মাবলশ্বন মনুষ্যকে যেরূপ সাহদী, উৎসাহী কার্যাকুশল করিয়। তুলে,পরাবলম্বন নেরূপ সাহসহীন, নিরুৎ্সাহ অকর্মণ্য করিয়া ফেলে যে পরিমাথে অন্য-

গ্রবন্ব-পাঠ।

দীয় পাহাব্য গ্রহণ করবা, সেই পরিমাণেই আন্কনির্ভরশক্তি হীয়মান হইহ1] পড়ে যাহার! আতন্মশক্তির উপর নির্ভর ন। করিয়া পরশক্তির উপর সম্পূর্ণ নির্ভর করিয়। থাকে,তাহাঁর। ক্রমে ক্রমে জড়পিওবৎ এরূপ অকম্মণ্য হইয়া পড়ে যে, অন্য কর্তৃক চালিত ন। হইলে এক পদও চলিতে পারে ন।। পর-প্রত্যাশীর স্তার ছুর্বল হীনচেত। জগতে আর দ্বিতীয় নাই যাহার! আশ্রয় পাইলেই দ্াড়াইয়। থাকে নিরাশ্রয় হইলেই পড়িয়। যায়, তাহা- দিগের অপেক্ষ। নিস্তেজ, হতভাগ্য জগতে আর কে আছে! ক্ষমত| স্বত্বেও যাহার। আন্ম-নির্ভর ন। করিয়। পরের গলগ্রহ হই থাকে, তাহার নিতান্ত অসার খথার্থ নরাধম পর-প্রত্যাশী হওয়। কাপুরুষের কম্ম। আম্ম-নির্ভর-শক্তি ধাহাদিগের বলবতী, তাহাঁরাই যথার্থ মহুষাত্ব লাভ করিয়াছেন ংবারে যত লোক হীনাবস্থা হইতে সনুন্নত অবস্থায় অধিরোহণ করিয়াছেন, ত!হাঁর! সকলেই আম্মীবলশ্বী জগতে যাহার! মহাপুরুষ বলিয়া বিখ্যাত, ধাহার। সামাজিক রাজনৈতিক ব্যাপারে প্রলিপ্ত থাকিয়। জগতেব মঙ্তোপকার সাধন করিয়। গিয়াছেন, বাহার। কি বাঁছবলে কি বুদ্ধি কৌশলে মানবমগলীর শীর্বস্থানীর হইয়াছেন, আন্মাবলম্বনই তাহাদিগের প্রধান সহ্ভায়। আম্মশির্ভর-শক্তি থাকিলে পরিশ্রম, অধ্যবসায়, একাগ্রচিন্তত! কাধ্যতৎ্পরত। প্রভৃতি যাবতীয় সদগ,ণ মন্গযোর স্বভাবসিদ্ধ হইয়া আইসে। খাহার! সর্বদাই পরমুখাপেক্ষী, সকল সদগ্‌ণ তাহাদ্দিগের নিকট স্থান লাভে সমর্থ নহে “ষে ব্যক্তি আপনার সহায় আপনিই হয়, ঈশ্বর তাহার সহায় হইয় থাকেন বক্ততঃঃ এই চিরন্তন মহাবাক্াটীর ভুরি তৃরি

আত্মাবলহ্বন

প্রমাণ পৃথিবীর সকল স্থানেই দেখিতে পাঁওয়! যায় পরমেশ্বর মন্ুষ্যদিগকে যেরূপ বুন্দিবৃত্তি বিবেকশক্তি প্রান করিয়া- ছেন, তাহাতে স্প্ই বোঁধ হয় যে, তাহারা অন্দীয় সাহায্য অপেক্ষ। না৷ করিয়! আপনার উপর ধত নির্ভর করিয়। চলিবে, ততই তাহারা মহোচ্চি পদবীতে আরোহণ করিতে পারিবে যখন তিনি ইতর প্রাণীদিগকেও স্বাধীন হইয়! চলিবার শক্তি দিয়াছেন, তখন যে তিনি মনুষ্যদিগকে ন্বাধীনতাধনে বঞ্চিত রাখিবেন, তাহ! নিতান্ত অনসভ্ভব | আত্মার যথেচ্ছ বিনিযোজন, বুদ্ধির যথেচ্ছ পরিচালন যথেচ্ছ বিষয় পরিচিস্তনে মানব- মাত্রে সম্পূর্ণ শ্বাধীন। অতএব আত্ম-নির্ভর-শক্তি যে মন্থয্য- মাত্রের স্বভ।বসিদ্ধ গুণ, তদ্িষয়ে অণুমাত্র সন্দেহ নাই।

সমাজ মনুষ্য লইয়াই সংগঠিত সমাজ সমুন্নত করিতে হইলে প্রত্যেক মন্ুষোর সমুন্নতির ববিশেষ প্রয়োজন কারণ বাক্তিগত উৎ্কর্ষাপকর্ষ লইয়াই সনষ্টিগত উৎকর্ষাপকর্ষের গণন! হইয়! থাকে দেশীয় হ্বাধীনতা উন্নতি, ব্যক্তিগত স্বাধী- নতা উন্নতির সংকলনমাত্র কোন একটা জাতিকে স্বাধীন সমুন্নত করিতে হইলে তজ্জাতীয় প্রত্যেক ব্যক্তিকে স্বাধীনতা- প্রি, শ্রমী, উৎ্সাহশীল কর্তব্যনিষ্ঠ, এবং প্রত্যেক ব্যক্তির দোষোত্পাটন করিয়া গুণরোপন করা সর্বাগ্রে কর্তব্য অলস নিরুৎ্সাহকে শ্রমশীল সমুৎসাহী করা, অমিতাচারীকে মিতাচারী করা, এবং পানাসক্তকে পান-দোঁষ-বজ্ভিত করা রাজা রাজান্ঞার ক্গমমতাতীত। নগ-চরিত্রের দণ্বিধান দণগুনীতির অন্তর্গত, কিন্ত তাহার চরিত্র-সংশোধন দগুনীতির আযত্যধীন নহে | অতএব জাতীয় উন্নতি নাধন করিতে হইলে তজ্জাতীয়

১০ প্রবন্ধ-পাঠ

ব্যক্তিগত উন্নতির সবিশেষ আবশ্তঠকতা স্বাবলম্বন স্বাধীনতা ব্ক্তিগত না হইলে কখনও কোন জাতি স্বাধীন সমুন্নত হইতে পারে না। প্রত্যেক বর্ণ উত্তমরূপে পরিচিত হইলে যেরূপ সমস্ত বর্ণমালা সম্পূর্ণ আয়তাধীন হয়, প্রত্যেক বৃক্ষের পাটা করিয়! দিলে যেরূপ সমস্ত বৃক্ষ-বাটিকার সৌনাধ্য সাধিত হয়, সেরূপ প্রত্যেক ব্যক্তির উন্নতি হইলে তত্তত্ব্যক্তির সমষ্টিগত সমস্ত জাতিরই উন্নতি নাধন হইয়া থাকে

বদ্দিও পর-সাহায্য-সাপেক্ষ হইয়া চলা নিতান্ত কাপুরুষের কশ্ম, তথাপি সময়বিশেষে অবস্থাভেদে অন্তকৃত সাহাযোর অগ্কক্ষে করিতে হয়। কারণ, আমর। যে সংসারে বস করি, তাহাতে সম্পূর্ণরূপ সাহায্য-শিরপেক্ষ হইয়া চলিলে অশেষ অন্ুবিধা আসিয়া! উপস্থিত হয়। বাল্যকালে কাহারও বুদ্ধিবৃন্তি মার্জিত বিবেকশক্তি পরিপুষ্ট থাকে না) সুতরাং তৎ- কালে পিতা মাত। অন্তান্ত আম্মীযগণের অধীন থাক আনা- দিগের একাস্ত প্রয়োজন হইয়। উঠে। বার্ধকা উপস্থিত হইলে জনক জননীগণ অশক্ত হইয়। পড়েন » অতএব এরূপ সময়ে তাহাদিগকে পুত্র কণ্ঠাদির আশ্রয় গ্রহণ কর! কর্তবা। কিন্তু শৈশবাঁবধি সকলের এরূপ অভ্যাস করা উচিত যে অধিকাংশ বিবয়েই অন্যদশিয় সাহায্যের অপেক্ষা করিতে না! হয়। বালক- বিগের স্বয়ং বন্ব-পরিধান, মুখ-প্রক্ষালন স্বহস্তে ভক্ষণ করিতে শিক্ষা কর! সবিশেষ কর্তব্য সম্ভানের! যাহাতে জনকঙ্গননী দাসদাসীগণের মুখাপেক্ষী হইয়। না থাকে, তদিষয়ে পিতামাতা গণের দৃষ্টি রাখ। অত্যন্ত আবশ্তক অতএব যাহাতে অন্ন, বস্ত্র জাবস্তক সামগ্রীর জন্য পরের মুখাপেক্ষী হইয়া! থাকিতে না হয়,

অধ্যবলায় ১১

ভদ্বিবরে বালাকাল হইতে যত্তবান, হওয়। নিতান্ত কর্তব্য | তাহা হইলে ভবিষ্যতে আমাদিগকে পরাধীন পরপ্রত্যাশী হইতে হইবে ন|। আম্ম-নির্ভরই অভীষ্ট সিদ্ধির, স্থুখ বৃদ্ধির উন্নতি সাধনের একমাত্র উপায়

অধ্যবসায় |

অভিলধিত কার্ম্য সম্পাদনে অবিচলিত মনোযোগ অবিরাম চেষ্টার নাম অধ্যবপায়। সংসার নিরস্তর বিদ্ব- সঙ্কুল বিপদ্‌-পরিপূর্ণ। কিন্ত যিনি প্রশাস্তচিত্তে বিপুল বিশ্লু- বিপত্তি অতিক্রম করিয়৷ অন্ুুঠিত বিষয়ে পূর্ণমনোরথ হন, তিনিই যথার্থ মহাপুরুষ অধ্যবসায়-সম্পন্ন ব্যক্তি আরব্ধ কার্য সাধনে একবার বিফল-প্রযত্র হইলেও নিরুদ্যম নিরুৎ্দাহ হইয়া প্রড়েন না। যতদিন অভীষ্-সিদ্ধি না হয়, ততদিন তাহার মন কিছতেই স্ুস্থির হয় না, এবং তাহার চেষ্ঠারও কিছুমাত্র নুযুনতা লক্ষিত হয় না। অভীইসাধনই তীহার প্রধান ব্রত এবং অধ্া- বসায়ই তাহার মূলমন্ত্র যিনি কোন কার্ষ্যে প্রবৃত্ত হইয়া পুনঃ পুনঃ বিদ্ব-বিহত হইলেও তৎ্সমাধানে নিরতিশয় যত্রবান_ও স্থিরপ্রতিজ্ঞ হন, অজ্ঞজলোকে তাহাকে অপদার্থ ক্ষিপ্মতি মনে করিয়! অশ্রদ্ধা করে। যাহাদের চিত্ত অতি ছূর্ব্বল, তাহা- রাই গন্তব্য স্থান ছুর্ঘম মনে করিয়া দূর হইতে পলায়ন করে; কিন্ত প্রকৃত অধ্যবসায়শীল ব্যক্তি উহাতে ভ্রক্ষেপও না করিয়া পর্বতের ন্যাঁয় অবিচলিত থাকেন “মন্ত্রের সাধন কিম্বা শরীর পতন” অধ্যবসায়ের মূল হৃত্র। এই স্ৃত্র ধরিয়া না চলিলে

১২ প্রাবন্ধ-পাঠ

কাহারও সমুল্লতি লাভের সম্ভাবনা নাই ধাহার। হীনাবস্থা হইতে আপনাদিগকে সমুন্নত করিয়া তুলিয়াছেন, অবিচলিত অগ্যবসায়ই তাহাদ্দিগের একমাত্র অবলম্বন বায্ু-বিক্ষোভিত উত্তাল-তরঙ্গময় বারিধি-বন্ষে সুদক্ষ নাবিক ভিন্ন অন্য কে।ন ব্যক্তি যেরূপ অর্ণবপোত রক্ষা! করিতে সমর্থ নহে, প্রতিকূল অবস্থায় পড়িয়া পুনঃ পুনঃ বিস্রবিহত হইলেও অধ্যবসারশীল ব্যত্তি ভিন্ন অন্য কেহ সেরূপ লক্ষ্যসাধন করিয়! আম্ম-রক্ষ! করিতে সমর্থ হয় না। যাহ! নিরস্তর আমাদিগের প্রতিকূল, তাহাও অধ্যবসায প্রভাবে অন্গকুল হইয়া! দ্ীড়ায়। অনন্ত অধ্যবসায় থাকিলে দরিদ্র ধনী, মূর্খ পণ্ডিত এবং ছুঃখীও সুখী হইয়া থাকে

শারীরিক বল বলবতার প্রকৃত চিহ্ব নহে; মনম্বিতাই ইহার প্রধান পরিচায়ক। উদ্যমশীলতার তারতম্য অনুসারে পুরুবত্বেরও ইতর বিশেষ হইরা থাকে যে ব্যক্তি বিদ্লভয়ে কোন কার্ধ্যে প্রবৃত্ত ন! হয়, মে নীচ কাপুরুষ; যে বাক্তি বিদ্ব-বিহত হইয়া আরব্ধ কার্ধ্য হইতে বিরত হয়, সে মধ্যম নিন্দনীয় পুরুষ 3 কিন্ত যিনি বিপুল বিদ্বিপত্ভি পাই- যাও ফলোদয় পর্যন্ত প্রারন্ধ কার্য্যে প্রলিপ্ত থাকিতে পারেন, তিনিই উত্তম মহাপুরুষ 1 “প্রতিভ1 না থাকিলে কোন কার্য্যই সমাহিত হয় না" ইহা! অলস কাপুরুষের কথা অধ্যবসায়ই প্রতিভার আবরণ খুলিয়। দেয়। চিরমলিন মণি শাণাশ্মঘর্ষণে যেরূপ উজ্জ্বলতা প্রাপ্ত হয়, জড়বুদ্ধিও অধ্যবসায় গুণে সেইরূপ প্রতিভাত হইয়া থাকে। বাল্যকালে অধ্যবসায় অকুরিত হইলে, যৌবনে তাহ। পুষ্পিত বার্ধক্য তাহা! অবশ্ত ফলিত হুইবে।

অধ্যবলায় ১৩

বিদ্যা, সদগণ এরশর্য্য লাভ করিতে হইলে অধ্যবসায় গুণের সবিশেষ আবশ্ঠকতা অধ্যবসায় শিক্ষা করিতে হয়। ধীরতা, একাগ্রচিত্তত। শ্রমশীলত| না থাকিলে প্রকৃত অধ্য- বসায় শিক্ষা হয় না। বালাক।ল অধ্যবস|য় শিক্ষার প্রকৃত সময়। অধাবনায়ের অভাবে অনেক বালক প|ঠের প্রারস্তেই কান বিষয় দুর্বরবোধ দেখিলে, তাহাতে হতাশ নিরৎ্সাহ হইয়া পড়ে ভয় আলস্য অধ্যবসায়ের প্রধান বিরোধী অতএব যাহাতে ভয আললম্য ন। আমিষ! সাহস শ্রমশীলত। আইনে, তদিষয়ে বালকগণের সবিশেষ যত্রবাঁন হওয়া আবশ্যক অধ্যবসায় ক্রমশঃ অভান্গ হইয়া আসিলে পরিশমে অক্রিষ্টত। বোধ হয় অন্সন্ধিৎস।-বুত্তি উত্তব্নোন্তর বলবতী হইতে থাকে অক্ষ টবাক্‌ ডিমস্থিনিন্‌ বক্ততাকালে সভাস্তলে অপ্রতিভ হইয়া স্বীধ অনন্ত অধাবসায় বলে পৃথিবীর মধ্যে সর্বপ্রধান বাগ্ধী বলিয়া পরিগণিত হইয়। গিয়াছেন ' ক্কটল্যাগুরাজ রবাট ক্রস শব্র- কক ঘ্বাদশবার পরাজিত হইয়া অবশেষে একটী উর্ণনাভের অধ্যবসায় অন্থুকবণ করিয়। ত্রয়োদশ বারে জয় পতাকা উদ্দীন করিয়া ছিলেন বীরকেশরী রণজিৎ সিহ নিরক্ষর হইলেও অবিচলিত অধাবসায় প্রভাবে সমস্ত পঞ্তাবে একাধিপতা সংস্তাপন করিয়া ছিলেন হাীনাবস্থ হরিশ্ন্দ্র মুখোপাধ্যায় দরিদ্র কষ্খদাস পাল অর্থাভাবে বেতন দানে অসমর্থ হইয়। বালা- কালেই বিদ্যালয় পরিত্যাগ করিষ। ছিলেন; কিন্তু দুর্জয় অধা- বসায় বলে ইংরাজী ভাষায় স্থলেখক স্ুপপ্ডিত এবং রাজনৈতিক বিষয়ে সবিশেষ দক্ষ বলিয়া! গণা হুইয়। গিয়াছেন।

১৪ প্রাবন্ধ-পাঠ। স্বাস্থ্য |

স্বাস্থ্য সকল ন্ুখের মূল স্বাস্থাহীন তীবন জীবনই নহে-_

বিড়ম্বনামাত উবর-প্রক্ষিগু-বীজানঙ্কর সমুদগমের ন্যায় চির- বাধি-গ্রস্ত নষ্ট-ঙ্বাস্থ্য লোকের নিকট কোন রূপ সুফল প্রন্যাশ'

করা যাইতে পারে না। বিগ্যাশোক-প্রদীপ্ত গুণ-গ্রাম-ভুষিত জতুল-ইশ্বধাশালী হইয়া! ব্যাধিমন্দিরে থাকিয়। রাজত্ব করা! অপেক্ষা অজ্ঞান-তিমিরাচ্ছন্ন, চিরমুর্খ ভিক্ষোপঞ্জাবী হইয়া নস্ট শরীরে থাকিয়া কথঞ্িৎ দ্রিনপাত করাও বরং নহত্রগুণে শ্লাঘা প্রার্থনীয সময়ে সময়ে ব্যাধিনিষ্পীড়িত উথান- শন্ষি-নিত দেহভাঁর বহনাপেক্ষ। মৃত্াুও অধিকতর আলিঙ্গ্য বলিয়। বোৰ হয় প্রাচীন পণ্ডিতের। কেন, “প্রথমতঃ শরীর-রক্ষা ধিতীয়ত:

ধন্মসাধন"' তাহাদের মতে শরীরের স্থস্তত1 সম্পাদন করাই জীবনের সর্দপ্রধন রত|। অতএব এই নশ্বর দেহ যাহাতে আমরণ- কাল ন্মুখস্বচ্ছন্দে থাকিতে পারে, তদ্িবয়ে আবাল বৃদ্ধ সকলেরই মনোধোগী হওয়া কর্ঠব্য মকলের ধাতু শু প্রকৃতি সমান নহে ; এক জনের পক্ষে যে নিয়ম পথ্য হিতকর বলিয়! বোধ হয়, অন্যের পক্ষে তাহা অপন্থ অনিষ্টকারী হইঈয়। উঠে। এজন্য সন্তারক্ষান কোন সাঁধাবণ নিয়ন দেখিতে পাওয়া যাঁষ নাং মাঁপনাকেই বুঝিবা লইয়। চালাইতে হয়। যেরূপ নিয়মে থাকিলে তোমার শরীর অন্দস্থ হইয়া! পড়ে, অমনি তাহা পরি- ত্যাগ করিবে কিন্ত আপাততঃ অনিইকর হইতেছে ন! বলিষ। কদাপি তাহা পথ্য হিতকর মনে করিও না। যৌবনাবস্থায়

স্বান্থ্য | ১৫.

রক্ত ইন্দ্রিয় সকল নতেঙ্গ থাকে ; তখন অবৈধাচরণ করিলেও সহস! অনিষ্ট-সংঘটন ন। হইতে পারে ; কিন্ধ বৃদ্ধাবস্থায় রক্তের তেজ ইন্দ্রিয় কলের প্রাবল্য কমিয়৷ আনিলে পূর্বকৃত অত্য।- চারের ফল শ্বরূপ নানাবিধ ছশ্চিকিৎস্য রোগ আসিয়া সমুপন্থিত হয। আহার বিষয়ে সর্বদ। সাবধান থাকিবে সম্বন্ধে কোনরূপ নিয়ম পরিবর্তন করিতে হইলে, কদাপি তাহা একবারে করিও না; একান্ত আবশ্তক হইলে অন্তান্ত বিষয়েও তদন্ুরূপ পরিবর্তন দ্বার| স।নঞশ্য রক্ষ। ক্িবে

আহার, নিদ্রা, ব্যায়াম বধ্রাদির দিকে সর্ববদ] দৃষ্টি রাখা কর্তব্য ইহু|টিগের মধ্যে যাহাতে যে নিয়ম অবলম্বন করিলে তোমার ্ুবিধাজনক বাঁলরা বো হধ, তাহাই তুমি গ্রহণ করিবে প্রতযুত, যাহ। অন্থবিধাজনক বলিয়া বোধ হয়, অমনি ক্রমে ক্রমে তাহার পরিবর্তন করিবে কিন্ত যদি পরিবর্তন-দনিত্ তোমার কোন রূপ অস্থখ বোব হর, তাহ! হইলে পূর্ব নিরমের অন্থসরণ করাই বিধেয়। কারণ, তোমার ধাতু প্রকুতি তুমি যেরূপ বুঝিবে, অন্যে সেব্প বুখিতে পারিবে না। আহার, নিদ্রা, ব্যায়াম ভ্রমণের সময় প্রফুল প্রনন্নচিন্ত থাকা দীর্ঘ- জীবন লাভ করিবার সর্বধশে্ঠ উপায় দ্বেব, হিংসা, ক্রোধ, হুশ্চিস্তী, উদ্বেগ, উতৎ্কট-ভয়, অপচিকীর্বা, অতি হর্ষ, অতি বিষাদ, গোপায়িত মনোব্যথা যত্রপূর্বক পরিতাগ করিবে কখন একবারে হতাশ হইও না; কারণ, আশাই ছুঃখীর্ স্থখ, তাপিতের শান্তি, ছুর্বলের বল ধরার অমৃত। একরপ আমোদে নিরস্তর প্রলিপ্ত থাকিও না। যে সকল ইতিবৃত্ত উপন্যাস পা&ধ করিলে মন প্রফুল্ল হয়, এবং যে সকল প্রাকৃতিক বিষয়

১৩ গ্রবন্ধ-পাঠ

পর্ধযালোচন1 করিলে হৃদয় আনন্দ-রসে আগ্ন,ত উচ্ছ,সিত হয়, সর্বদ| তাহাতে অবহিত থাকিবে একবারে ওষধ পরিত্যাগ করা ভাল নয়; কারণ আবশ্টক হইলে তাহা আর ফলপ্রদ হইবে না। প্রত্যুত, নিরস্তর ওধধ-সেবন অভ্যাস করাও যুক্তি- সিদ্ধ নহে; কারণ পীড়াকালে তাহাতে আর কিছুমাত্র ফল দর্শিবে ন।। অভ্যাসের বশবর্ভী হইয়। নিরভ্তর ওষধ সেবন করা অপেক্ষা খতুবিশেষে খাছ সামগ্রীর পরিবর্তন কর] বিধেয় এরূপ করিলে শরীরও তি প্রাপ্ত হয়, অথচ ওষধ-সেবন-জনিত কিছুমাত্র কষ্ট সহ্য করিতে হয় না

শরীরে অকস্মাৎ কোন অবস্থাস্তর দেখিলে অমনি কোন বিচক্ষণ ব্যক্তির নিকট তাহার কারণ জিজ্ঞাস্থ হইয়া, ত্ক্ষণাৎ তাহার প্রতিবিধান করিবে গীড়াকালে কেবলমাত্র আরোগ্যের দিকে দৃষ্টি রাখা কর্তব্য। তৎকালে আপাত-মধুর পরিণাম- কটু সামগ্রী স্খসেব্য হইলেও কদাপি তাহা পথ্য হিতকর মনে করিও না। স্মুস্থাবস্থায় শ্রম-বিমুখ হওয়। উচিত নহে শরীর কঞ্টসহ হইলে কোন রোগই সহসা আক্রমণ করিতে পারিবে না। পর্যাপ্ত ভোজন করিবে, কিন্ত উপবাসেও কাতর হইও ন1। সচ্ছন্দে নিদ্রা যাইবে, কিন্তু রাত্রি জাগরণেরও অভ্যান রাখিবে | সর্বদা শ্রমশীল হইবে, কিন্ত বিশ্রীম করিতেও অবহেল! করিও না। এইরূপ উভয়বিধ আচরণই আমুষ্য ান্থ্যকর। কোন কোন চিকিৎসক প্রকৃত রোগজয়ের দিকে কিছুমাত্র দৃষ্টি ন! রাখিয়া কেবল রোগীর ইচ্ছা্ছসারেই ওফধ পধ্যাদির ব্যবস্থা! করিয়া থাকেন ; কেহ কেহ বা রোগীর কথার ক্ষর্ণপাত না করিয়া কেবল নিজ শান্তরোক্ত পদ্ধতির অন্থবস্তা

শৈশব | ১৭

হইর। চলেন এই উভয়বিধ চিকিৎসকই অবিবেচক অকর্মণ্য এরূপ স্থলে একজন মধ্যবিধ চিকিৎসকের অধীন থাকাই যুক্তি- সঙ্গত যদি দ্বিবিধ-গুণশালী লোক প্রাপ্ত হওয়! ন। যায়, তাহা হইলে ছুই জনকেই মনোনীত করিবে যিনি তোমার ধাতু সবিশেব বুঝিয়াছেন যিনি চিকিৎ্পাবিগ্ভায় অতি বিচক্ষণ, তিনিই তোমার প্রকুত চিকিৎসক

শৈশব |

শৈশব অতি ম্থখকর রমণীয়। তৎ্কালে হৃদয় অতি কোমল সরল এবং চিত্ত অতি প্রসন্ন প্রফুল্ল থাকে সংসারের যাবতীয় বস্ত আননাময় বলিয়া বৌধ হয়। তখন যৌবন-ম্থুলভ ছর্জয় ষড়রিপুর তাৃশ প্রাবল্য থাকে না, এবং বার্দক্য-ন্থুলত দুর্বিষহ পূর্ব-স্বতি নিবন্ধন মনোব্যথ। কিছুমান অন্থভূত হয় না। শিশুর চক্ষু প্রস্ফূটিত পুষ্প উভয়ই তুল্য ? কারণ, উভয়ই নিফলক্ক, মনোরম পনিত্রতা-ব্যঞ্জক শিশুর প্রীতি-প্রফুল্ল মনোহর মুখমণ্ডল তাহার নিশ্বল নিষ্পাপ হুদয়ের প্রতিবিশ্ব-স্বরূপ তাহার মৃদু-মন্দ অস্ফট ধ্বনি কর্ণ- কৃহরে অমৃত বর্ণ করে। তৎ্কালে দ্বেষ, হিংসা, চৌর্া, প্রতারণা, দুরাণা, ছৃশ্চিন্তা প্রভৃতি নিকুই ভীষণ প্রবৃত্তি সকল তাহার হৃদয় চিত্ত অধিকার করিতে পারে না। যৌবনে যাহ! করিতে|লজ্জা, ভয়, আত্মগ্রানি উপস্থিত হয়, শৈশবে তাহা! অবাধে সম্পন্ন হইয়া থাকে রোঁদনই শিশুর প্রধান বল, হাস্ই তাহার প্রধান সহচর

৬৮ গ্বন্ধ-পাঠ।

শৈশব কাল,হদয়-ক্ষেত্রে জঞান-বীজ-বপনেক প্রকৃত খতুত্বরূপ সেই সময়ে ইহাতে যেরূপ বীজবপন করিবে,আজীবন তাহারই ফল- ভোগ করিবে অতএব শৈশবে হদয়ক্ষেত্র অকৃই পতিত রাখা বা ইহাতে কোন মন্দবীজ পড়িতে দেওয়া উভয়ই সমান সাংঘা- তিক কুরীতি, কুনীতি, কুসংস্কার প্রভৃতি কণ্টকী বৃক্ষ ওলি এক- বার বদ্ধমূল হইলে তাহারা সহজে উৎপাটিত হইবার নহে যদি যত্ত করিয়া শৈশবে জ্ঞানবীজ বপন করিতে পার, তবেই তাহ৷ যৌবনে বৃক্ষরূপে পরিপুই হইয়া বার্ধক্যে তোমায় স্থফল প্রদান করিবে| নরস কোমল বস্ততে দ্রব্যান্তরের চিন্নু যেরূপ দৃঢ়তররূপে সংলগ্র হয়, নীরস কঠিন পদার্থে কখনই সেরূপ নহে | শৈশবে আমাদদিগের অস্তঃকরণ মধুখখব্ কোমল থাকে তৎ্কালে দয়া, ধন্্ ওকৃতজ্ঞতাদি শুণগ্রামের অনুশীলন করিলে অস্তঃকরণে যেমন সকল গুণের দৃঢ় সংস্কার জন্মে, যৌবন বা বার্ধক্য সেরূপ হইবার সম্ভাবনা অতি অল্প বাল্যকাল বিচ্যাশিক্ষার জ্ঞানো- পার্জনের উপযুক্ত সময়। এসময় বালকগণ যাহাতে ন্ুশিক্ষা প্রাপ্ত হয়, তাহা করা পিতা মাতা শিক্ষকগণের সবিশেষ কর্তব্য বালকগণ ম্বভাবতঃ তরল-মতি যাহাতে তাহার! কোনরূপ অন্যায় কার্য্যে লিপ্ত না হয়, সে বিষয়েও লক্ষ্য রাখা বিধেয় বিগ্যাশিক্ষার সঙ্গে সঙ্গে নীতি শিক্ষা দেওয়া আরও প্রয়োজনীয় যাহাতে নীতিবাক্য গুলি তাহার! কার্য্যে পরিণত করিতে পারে, তথ্বিযয়ে সচেষ্ট হওয়! সমধিক আবশ্তাক অনেকে শিশু দিগের সমক্ষে কৌতুকচ্ছলে মিথ্যা কথা৷ পরিহাসচ্ছলে অঙ্গীল বাক্য প্রয়োগ করিয়া থাকেন কিন্তু এরূপ করা অতি অন্যায় ; কারণ. কমে ক্রমে ইহা তাহাদিগের

বৌবন। ১৯

চিরাভ্যন্ত হইয়। আসিতে পারে কুসংসর্গ বাল্যকালের একটা মহাদ্দোষ সঙ্গদোষে নিকলস্ক চরিত্রও কলঙ্কিত হইয়! যায় অতএব বালকগণ যাহাতে কুসংসর্গ হইতে নিলিপ৭্ত থাকিতে পারে, তদ্িষয়ে পিতা মাতা শিক্ষকগণের সবিশেষ .দৃতি রাখা কর্তব্য যৌবন | যৌবন বিষম কাল যৌবনের প্রারস্তে ফড় রিপুর গ্রাবল্য পঞ্চেক্ড্রিয়ের প্রাখর্য্য পরিলক্ষিত হইতে থাকে তখন শত শত বিষয়ে কামনা, সামান্য কারণে ক্রোধ, পরকীয় দ্রবো লোভ, অপ্রিয় সংটনে মোহ, বিষয় বিশেষে মদ পরমঙলে মাত্সর্ধয আসিয়। সমুপস্থিত হয় চন্ষু,জিহ্বা, নাসিকা।, ত্বক কর্ণ এই জ্ঞানেক্দ্রিয় গুলি রূপ, রস. গন্ধ, স্পর্শ শব্ধ গ্রহণে সমধিক বলবান. হুইয়া উঠে। বয়োবৃদ্ধি সহকারে অক্ষ প্রঙ্/ঙ্গ সকল যেরূপ পরিপুষ্ট হইতে থাকে, মানসিক শক্তিও সেইরূপ তেজন্থিনী এবং ভোগ-লালস।-বৃত্তিও সমধিক বলবতী হইতে থাকে শৈশবে মন যেরূপ নির্বাত জলাশয়ের হ্যায় স্ন্থির থাকে যৌবনে সেরূপ বাঘু-বিক্ষোভিত বারিধির ন্যায় বিপর্য্যস্ত হইয়া পড়ে শৈশবে অক্তঃকরণ নিশ্চিন্ত, নিরদ্েগ নিত্য-সন্তষ্ট থাকে, কিন্তু যৌবন উপস্থিত হইলে দুশ্চিস্তা,ছুরাঁকাজ্ষ। অসস্তোষ আসিয়। সমুপস্থিত হয়। তখন যাহা যুক্তকণ্ে বলিতে পার! যাইত, এখন তাহ উচ্চারণ করিতে নন্কুচিত হইতে হয়। তখন যাহা করিতে কিছুমাত্র কৃঠিত হইতে হইত না, এখন তাহা। করিতে বট ভর «ও আত্বগ্লানি আসিয়া উপস্থিত হয়

২০ প্রবন্ধ-পাঠ।

এই নিথিল পরিদৃশ্বমান বিশ্বসংসার একটা স্মবিস্তৃত কণ্ম-ক্ষেত্র ইহাতে যিনি যেরূপ কর্ম করিবেন, তিনি তদন্থুরূণ ফলভোগী হইবেন। যুখকগণ যখন অনুরাগ ভরে সংসারে প্রথম প্রবেশ করে, তখন চতুঃপার্খস্থ যাবতীয় বস্ত মনোরম বলিয়া! বোধ হয় চপণচিত্ততা যৌবনের প্রধান মহচর ; এবং সংসারও নান'বিধ প্রলোঙনে পরিপূর্ণ যাহা আপাত-মধুর অথচ পরিণাম-কটু, তাহাই তাহার! স্থখসেব্য হিতকর বলিয়। গ্রহণ করে তাহার! যৌবননদে মন্ত হই কোন বিষয়েরই প্রকৃত তত্ব অনুসন্ধান করিতে সনুৎ্ন্থুক নহে | তখন প্রমাদ, অবিবেক অবিমৃুষ্যকারিত। আসিয়! তাহাদিগকে গ্রাস করিয়া! ফেলে এরূপ অপরিণত অবস্থায় অলস, অনবহিত যথেচ্ছাচারী হইয়া চলিলে তাহাদিগের পদে পদে বিপদ্‌ ক্রববিনাশ অবশ্থস্তাবী সংসার-কাননে প্রবেশ কালে ছুইটী পথ যুবকগণের নয়ন- গোচর হয় ; একটা সৎ-পথ অন্তটী অসৎ্পথ সৎ্-পথ সম্মুখভাগে সঙ্কার্ণ, বক্র ছুর্ণম) কিন্ত পশ্চাডাগে বিস্তীর্ণ, সরল ম্গম। অসত্-পথ পুরোভাগে প্রশস্ত দীপা লোকে প্রদীপ্ত; কিন্ত পশ্চান্তীগে সস্কীর্ণ প্রগাঢ় অন্ধকারে সমাচ্ছপ্ন। অতএব অসৎ-পথ পরিত্যাগ করিয়। সত-পথ অবলম্বন করাই সর্ধতোভাবে বিধেয় সঙ্-পথে প্রচুর সম্পদ অপীম জ্ুখ, এবং অসৎ্-পথে বহুল বিপদ অশেব ছুঃখ।

ঈশ্বর-চিন্তা যুবকগণের সর্ব প্রধান কর্তব্য কর্ম ঈশ্বরে প্রগাঢ় অনুরাগ জন্সিলে তদীর নিয়ম-লজ্ঘনের তত সম্ভাবন! থাকে না। ধঁশী ইচ্ছার বিরোধী স্যষ্টি-নিয়মের প্রতিকূল কার্য করিলে প্রত্যবায় জন্মে, এরূপ শুভ সংস্কার ক্রমে ক্রমে

যৌবন। ২১

বদ্ধমূল হই! যায়। অহমিক|বুতি যৌবনকালের নিত্য সহ- চরী। তরুণেরা সকল বিষয়েই আপনাদ্দিগকে অত্রাস্ত ল্মবিবেচক মনে করিয়া! বৃদ্ধদিগের সারগর্ভকগা অসার মনে করে এজন্য অনেক সময়ে তাহাদিগকে অন্তপ্ত হইতে হয়। যৌবন সীমায় পদার্পণ করিলে কাম ক্রোধাটি নিকুষ্ট প্রবৃত্তি নকল উদ্দীপ্ত হইতে থাকে যে কামনা ধর্ম-বিগর্হিত লোকাচার- বিরুদ্ধ, কদাপি তাহাকে মনে স্থান দিবে না। ক্রোধ মনুষ্যের মহাশক্র; কিন্তু স্থলও সময় বিশেষে প্রযুক্ত হইলে ইহা! প্রকৃত বন্ধুর কার্ধ্য করিয়। থাকে | ক্রোধ উপস্থিত হইলে তথ্ক্ষণাঁৎ তাহার দুবীকরণ কর|। আবগ্তক। যাহারা কোন কারণ বশতঃ ক্রোধ প্রকাশ করে, তাহারা সেই কারণের অপগমেই প্রশান্ত হয়; কিন্ত যাহারা অকারণে কুপিত হয়, তাহাদিগকে কিছুতেই পরিতুষ্ট প্রসন্ন করিতে পারা যায় না! সকল বিষয়েই অমায়িক, সত্যানিষ্ স্থিবপ্রতিজ্র হওয়া যুবকগণের প্রধান কর্তব্য কর্। বয়োবৃন্ধ, জ্ঞানবৃদ্ধ উচ্চপদারঢ ব্যক্তি নিকট প্রগল্ভ ব্যবহার পরিত্যাগ করিয়। বিনয়নত্র হইয়! থাকাও তাহারিগের সমধিক আবশ্তক যৌবনে অক্রিষ্ট পরিশ্রম অনস্ত অধাবসায় অভ্যস্ত হইয়।'আনিলে ল্মহান্‌ কার্্যও অনায়ামে ম্পাদিত হইতে পারে অতএব প্রত্যেক কার্য্ের অগ্রপশ্চাৎ ভাবিয়1ও চরিত্রের দ্বিকে লক্ষ্য রাখিয়। চলিলে যুবকগণের স্মলিতপদ হইবার সম্ভাবনা অতি অল্ন।

২২ প্রবন্ধ-পাঠ

বার্ধক্য |

বাঞ্ধক্য মানবজীবনের অপরাহ্-ম্বরূপ সমস্তদিন কিরণ জাল বিস্তার করিয়! স্র্ধ্যদেব যেরূপ ক্ষীণকান্তি নিস্তেজ হইয়া! পড়েন, শৈশব যৌবন অতিক্রম করিয়া! বার্ধক্যে আসিয়া আমরাও সেইরূপ অবসন্ন হীনবীর্ষ্য হইয়া পড়ি। এসময় যৌবন-ম্ুলত চিত্ত-চাপল্য অহমিকা-বৃত্তি অন্তহিত হয়; ন্ুযুপ্তি-জনিত রজনীর বিশ্বামন্ুখ হ্বীক্পমাঁন হইতে থাকে ; এবং অক্রিই পরিশ্রম, ছুর্জয় অধ্যবসায়, প্রগাঢ় মনে(নিবেশ বলবতী বিচাঁরশক্তি বিচ্যুত হইযা পড়ে বড়ব্রিপুর গ্রাবলা পঞ্চেন্দ্িয়ের প্রাখর্য্য ক্রমে ক্রমে মন্দীভত হই আই:স।.স্থতি-শভির ক্ষীণতা,চিস্তা- শক্তির ন্যুনত।,উৎ্সাহ-শক্তির অল্পত। ভোগবাননার হন্গতী উত্ত- রোন্তর পরিলক্ষিত হইতে থাকে দেহ ক্ষীণ,ক[ন্সি অপগত, চন্ম বলিত, চক্ষু নিমগ্ন, মুখমণ্ডল নিম্প ভ, তৃণড দ্শহীন, কেশপাশ কাশকুন্থমবণ্, চরণধুগল চলৎ-শক্তি-বিরহিত,এবং যাঁবতীয় অঙ্গ- প্রত্যঙ্গ দুর্বহ-ভার-গ্রস্ত বলিয়া অনুভূত হয়

সংসারের মোহিনী মায়য় সকলেই সমাচ্ছন্ত্র। মায়াপাশ কাটিয়া নির্ধক্ত হওয়া কাহারও নাধ্য নহে। জরাজীর্ণ ব্যক্তির অন্তিম কাল উপস্থিত; তথাপি নংসারের জন্ঠ সে সদাই বাস্ত। যৌবন-মদে মত্ত মোহান্ধ হইয়! কত শত মহাপাপ করিয়াছি, কত শত লোকের সর্বনাশ করিয়াছি কত শত লোকের বিনা- দোষে মনস্তাপ দিয়াছি, ইত্যাদি দুর্বিষহ পূর্ব-স্থতি আসিয়! অনুষ্ষণ তাহার সমধিক যন্ত্রণ বৃদ্ধি করে। স্যট্টির কি অদ্ভুত কৌশল সংসারের কি বিচিত্র লীলা! মৃত্যুকাল দিন দিন

বাঞ্ধকা ২৩

নিকটবস্ভা হইতেছে, শরীর ক্রমশঃ অবসন্ন হইয়া আসিতেছে, মন নিতান্ত ব্যাকুল হইয়। পড়িয়াছে, কিন্ত তথাপি বিষয়-বাসন। পূর্ব্বৎৎ বলবতী রহিয়াছে কিসে আরও দিন কয়েক জীবিত থাকিতে পারি, কিসে পুত্র কণ্ঠদির ভরণপোষণের জন্য আরও কিঞ্চিৎ অর্থ সঞ্চয় করিয়া যাইতে পারি, কিসেই বা তাহার! নখ ম্বচ্ছন্দে জীবন যাঁত্র! নির্বাহ করিতে পারিবে, ইত্যার্দিরই অন্ুথবান অন্ুক্ষণ তাহার চিত্তরাজ্য অধিকার করিয়া থাকে। নির্বাণোশ্ুখ দীপ শিখার ন্যায় তাহার বুদ্ধিশক্তি ক্ষণে ক্ষণে উজ্জ্বল ক্ষণে ক্ষণে নিষ্প.ভ হইয়া থাকে অমানিশার স্থচিভেদ্য অন্ধক।রে ক্ষণ প্রভ। যেরূপ পরিশ্রাস্ত পথিত্রষ্ট পথিকের পথ প্রদর্শন করিয়া ুহূর্তমধ্যে বিলয় প্রাপ্ত হয়, নেই রূপ ম্ুখ আশা প্রাীনের অন্তঃকরণে সমুস্তত হইয়া পরক্ষণেই আবার অন্তহিত হইর! থাকে

যৌবন শৈশবের পূর্ণবিকাশ বার্ধক্য তাহার পরিণতি যৌবনে যাহ। পরিপুষ্ট বলবান্‌, বার্চক্যে তাহা পরিক্ষীণ ছুর্ববল হইয়া! পড়ে যুবকের। সচে, শ্রমশীল উত্নাহ-সম্পন্ন 3 বৃদ্ধেরা নিশ্চেই. নিরৎ্সাহ শ্রমকাতর। কল্পনা উৎসাহ শক্তি যুবকগণের, এবং বিবেচন। মন্ত্রণাশক্তি বৃদ্ধগণের সর্ব- প্রধান সহায়। নবীনের! ক্ষিপ্রকন্মী, নিঃসন্দিগ্ক প্রাচীন রীতির বহিভূতঃ প্রাচীনের দীর্ঘস্ত্রী, সন্দিহান চিরস্তন প্রথার পক্ষপাতী নব্যেরা সকল কার্য্যেই স্পর্ধাবান বদ্ধ-পরি- কর। তাহারা যুগপৎ নানা কার্য আরম্ভ করে বলিয়াই পরি- শেষে কোনটাই ন্ুসম্পন্ন হইয়া উঠে না। তাহারা কোন বিষয়ে ক্রমাবলম্বন করিতে বা বিলম্ব ঘহিতে অসমর্থ আত্মমত অন্রাত্ত

২৪ প্রাবন্ধ-পাঠ

বিবেচন। করিয়া! তাহার প্রচারার্থ তাহারা সমুৎস্থুক হয়; এবং সামান্ত বিষয়ের জন্ত বহু আড়ম্বর করিয়া! তুলে নখাগ্থে যাহা ছিন্ন হয়, তথায় তাহারা কৃঠার প্রয়োগ করে ; এবং হৃচ্যগ্রে যাহ! স্থসম্পন্ন হয়, তথায় তাহার! ব্রন্ধান্ত্র প্রয়োগ করিতেও কুষ্ঠিত নহে। প্রাচীনেরা সকল কার্য্যেই আপত্তি প্রকাশ পরামর্শে বর্ষ ক্ষয় করেন; এবং সামান্ত বিদ্ব বিপত্তি দেখিলেই ভগ্নোৎসাহ ভগ্র-প্রতিজ্ঞ হইয়া পড়েন। তাহার! স্বল্পলাভেই সন্ত হইয়! থাকেন যদি নব্য প্রাচীন এই উভয়- বিধ লোকের একত্র সমাগম হয়, তাহা হইলে নংসর্গ-বশতঃ উভয়ের দোষ পরাম্পর সংশোধিত হইয়া সকল কার্ধ্যই স্থচাক্ুরূপে সম্পন্ন হইবার সম্পূর্ণ সভাবনা | বিশেষতঃ যুবকের! প্রবীন- দিগের রীতি, নীতি আচার ব্যবহার দেখিয়া আপনাদিগের দোষ গুণ বিচার করিতে শিখে এরূপ করিলে উত্তর কালে তাহারা সকল বিষয়েই পারদ হইতে পারিবে

শৈশব যথানিয়মে অতিবাহিত না হইলে যৌবনও ভান্বর হয় না, বার্ধক্যও অশেষ ম্থখের আলয় হইয়। উঠে ন! | বর্ষায় বৃক্ষরোপণ বসন্তে মুকুলোদগম না হইলে নিদাঘে সহকার তরু ফলপ্রস্থ হইতে পারে ন1 ঈশ্বর-চিত্তা, শান্ত্রালাপ আত্মীয় বন্ধুর সহিত সহবাস বুদ্ধকালের সর্বপ্রধান সহাষ | ঈশ্বর- চিন্তায় দয় নিশ্নল চিত্ত পবিত্র হয়। চিত্ত-শুদ্ধি হইলেই শাতিস্থখের অধিকারী হইতে পার! যায় পরমাত্মায় আত্ম- সমর্পণ করিয়। জীবনের শেষভাগ নিরুদেগে অতিবাহিত কর অপেক্ষা ্থখের বিষয় আর কি আছে!

শান্ালাপে বৃদ্ধকাল তুর্বহ বলিয়। বোধ হয় না। সে

কৃপণতা! | সময়ে অন্ত প্রকার আমোদ প্রমোদের ইচ্ছা! বলবতী থাকে না। সুতরাং শান্্রালাপে অন্থরক্ত থাকিলে ছঃখণড সহস! অভিভূত করিতে পারে ন। | নিক্লপায় বৃৰক]লে আন্মীয় বন্ধুর নহিত সহবাসও বড় স্থুখকত্র। তহকালে তাহার। হ্য়ং পরিশ্রম করিতে পারে না; সুতরাং তাহাদিগকে অন্তের মুখাপেক্ষী হইয়া থাকিতে হয়। এরূপ স্থলে স্বজনবর্গ নিকটে থাকিলে সমধিক ন্থখের কারণ হইযা থাকে অতএব নিরুপায় বুষ দশ! সুখ স্বচ্ছন্দ অতিবাহিত করিবার জন্য শৈশব যৌবন হইতে যথোচিত উদ্যোগ করিয়া প্রস্তত হইয়! থাক। সর্ববতোভাবে বিধেয়

কূগণত। |

কুপণের জীবনধারণ বিড়ম্বনামাত্র যেব্যাঞ্জি সবল হই- লেও হূর্ব্বল, সুস্থ হইলেও অন্ুস্থ, ধনী হইলেও নির্ধন, নির্ভর হইলেও নিত্য-শঙ্কিত, এবং সাহনী হইলেও কাঁপুক্ষষ, তাহার ম্যায় হীনচেতা হতভাগ্য লোক জগতে আর কে আছে! কুপন চিরকালই দরিদ্র অভাব-গ্রস্ত দরিদ্রের দারিদ্য-মোচন হয়, কিন্ত অভাব-রন্ত কৃপথের কিছুতেই অভাব মোচন হয় ন!। অন্নাহারে ক্ষুধার্ভের ক্ষুন্নিবৃত্তি হয়, এবং জলপাঁনেও পিপান্থুর পিপাসা-শান্তি হইগনা থাকে, কিন্ত অনন্ত ব্রন্মাও গ্র:স করিয়া ফেলিলেও ছুরাকাঙ্খ কুপনের কখনই উদরপূর্তি হয় না। অর্থম্পৃহা যাহার বলবতী, তাহার আম্ম। অতি দরিদ্র এবং সত্কর্শ তাহার নিকট স্থান লাভে সমর্থ নহে অপরিমিত- অর্থলালস। হৃদয়-নিহিত হলাহল ম্বূপ। ইহ হৃদয়ের সমস্ত

হশু প্রবন্ধ-পাঠ।

উৎকৃষ্ট ধর্মকে কলুষিত বিধ্বস্ত করিয়া থাকে। অনুচিত অর্থলালসা হুদয়ে যেমন বদ্ধমূল হইয়া উঠে, দয়া, দাক্ষিণ্য, ন্নেহ, মমত! প্রভৃতি সমস্ত বদগুণ উহাকে দেঁখিব! মাত্র দুরে পলায়ন করে ধন দান করিয়া দাতার মনে যেরূপ আত্ম-প্রসাদ জন্মে, ধন সঞ্চয় করিয়া কুপণের মনে সেরূপ আত্ম-গ্লানি উপ- স্থিত হয়। অর্থ দাতার পরিচারক, কিন্তু উহ বুপণের অধীশ্বর দাতা অন্যের গ্রতি ষদয়, কুপণ আপনার প্রতি নিষ্ঠর দাতার হৃদয় প্রশস্ত চিত্ত উন্নত, কৃপণের হৃদয় সন্কীর্ণ চিত্ত অবনত আম্মোৎসর্জন দাতার চরম লক্ষ্য, আত্ম-বঞ্চন কপণের পরিণ!ম ফল। দানে দাতার সুখ, শান্তি তৃপ্তি জন্মে; রক্ষণে ক্ুপণের অন্নুখ, অশান্তি অতৃপ্তি উপস্থিত হয় অর্থদানে রিক্তহস্ত হইলেও দাতা পুণাসঞ্চয় করেন ; অর্থসংগ্রহ্থে অন্থুরত থাঁকিলেও কৃপণের পাপসঞ্চর হয়। মূর্খ-পুত্র পণ্ডিত-পিতার যেরূপ লজ্জাজনক, কৃপণ-পুত্রও দানশীল-পিতার সেইরূপ কুলাঙ্গার-স্বরূপ |

কৃপণের অবস্থা বড় শোচনীয় | তাহার স্তায় আত্ম-বঞ্চক জগতে আর দ্বিতীয় নাই। ধন তাহার একমাত্র উপান্ত দেবতা, এবং ধনোপার্জন ধন-সঞ্চয়ই তাহার বর্ব প্রধান ত্রত | গৃহ- সচ্জা ক্রয় করিবার নিমিত্ত নির্বোধ লোকে যেরূপ গৃহ বিক্রর ফরিয়! থাকে,কপণ ব্যক্তিও অর্থ প্রাপ্ত হইয়া সুখী হইব, এই রূপ আশা করিয়া অর্থোপাজ্জনার্থ অভ্তঃকরণের সমস্ত শাস্তি বিনি- খয় করিয়া! থাকে কৃপণ ব্যক্তি অর্থের পরিচর্য্যা করে, কিন্তু অর্থ তাহার পরিচর্যা করে না। অধিকৃত অর্থ তাহার পক্ষে বর. ন্বরীপ$ কারণ উহা! তাহাকে নিরভ্তর দগ্ধ নিপীড়িত

কুপণতা | ২৭

করিতে থাকে গর্দভ যেরূপ তাহার নিপীড়িত পৃষ্ঠে পিশডীভূত স্থবর্ণরাশির ভার বহন করিয়! নিশ্চিম্ত হয়, নির্ব্বোধ কৃপণও ধনভার মাত্র বহন করিয়। সেইন্ূপ কথঝ্চিৎ দিন পাত করিতে থাকে, এবং অবশেষে মৃত্যু আসিয়! তাহাকে সেই ছুূর্বহ ভার হইতে বিমুক্ত করিয়া দেয়। ক্ুপণ অভুল এশ্বর্য্যের অধিপতি হইলেও অর্থনাশ ভয়ে সঞ্চিত অর্থের সঘ্যয় করিতে কু্িত। সম্তান ব! ম্বজনবর্গকে ন্গুশিক্ষা দান, পীঁড়াকালে ন্চিকিৎসক কর্তৃক চিকিৎসাঁকরণ প্রভৃতি অবপ্ঠ কর্তব্য কর্মে তাহার অনিচ্ছা শৈথিল্য দেখ। যায় কদন্ন আহার করিতে, এমন কি নিরন্ন থাকিতে পারিলেও এরূপ লোক বোধ হয় কিছুমাত্র কাতর সঙ্কুচিত নহে। মহানমুদ্র মহাকুপণ উভয়ই সমান | সমুদ্র অপার অগাধ হইলেও তাহার জল বিশ্বা অপেয়; কুপণের ধন অসীম অপরিমেয় হইলেও তাহ। নিরর্থক অব্যবহার্ধয। অসংখ্য নদ নদী গ্রাম করিয়া ফেলিলেও সমুদ্রের যেরূপ কথনই উদরপূর্তি হয় না, অনন্ত ত্রদ্মাণ্ডের একাধিপতি হইলেও কপণের সেই রূপ কখনই তৃপ্তি- লাভ হয় ন|। কিঞ্চিন্াত্র বাদু উখিত হইলে সবুদ্রের জল যেরূপ অস্থির উদ্বেল হইর। উঠে, ধনলিক্পার উদ্দীপন হইলে কপণের মনও সেইরূপ অশাস্ত উদ্দিগ্ন হইয়া উঠে | ধন- লোভীর লোভানল কিছুতেই নির্বাপিত হইবার নহে ; দ্বতাহুতি পাইলে বরং তাহ, অধিকতর উদ্দীপিত হইয়া থাকে | কৃপণের মামোচ্চারণেও প্রত্যবায় আছে। যাহার! ক্ষমতা সত্বেও ক্ষুধাত্তকে মু্ইিমাত্র অন্নদান এবং পিপানার্ভকেও বিন্দুমাত্র জল দান ন। করিয়৷ নিখীথ রাত্রিতে কুনীদ-গণনায় অভিনিবিই হয় $' যাহার!

২৮ 'প্রবন্থ-পাঠ

অমানিশার স্থচিভেছ্য অন্ধকারে ঝঞ্ধাবাত-পীড়িত দ্বারস্থ শরণ।- পন্ন অতিথিকে দূরস্থ বিপন্ন করিতে কিছুমাত্র সঙ্কুচিত ন! হইয়া! স্বয়ং হুষ্টচিত্তে স্থুকোমল শয্যায় শয়ন করিহ1 থাকে, প্রাতঃকলে তাহাদের নামগ্রহণেও ভদ্রলোকে বে ঘ্বধা প্রকাশ করিয়। থাকেন, তাহা নর্বথা যুক্তি-নঙ্গত এরূপ অন্গচিত অর্থলালস!- গ্রস্ত কপণের অন্তিম কাল বড় ভয়ঙ্কর দুঃখজনক আসন্ন কালে লোকে নংসারের যোহিনী মায়ায় শ্গভাবতঃ নমাচ্ছন্ হইয়া থাকে! নিরন্ন নির্বনত্র থাকিয়। যাহা এত দিন সঞ্চয় করিয় ছিলাম, তাহা! এখন ফেলিয়া যাইতে হইবে, এই ভাবিয়। রুপণ দিন দিন অবসন্ন হইয়া পড়ে তখন তাহার পূর্ববকৃত- আম্ম-বঞ্চনা-স্থতি আপিয়া নিরস্তর তাহাকে অন্তাঁপানলে দগ্ধ করিতে থাকে

অর্থগৃর, লোকের অদাধ্য কিছুই নাই। অনুচিত অর্থলালসা থাকিলে লোকের কিরূপ দুর্দশা! ঘটিতে পারে, মার্সন্‌ ক্রোশস্‌ তাহার উত্তম দৃষ্টান্ত স্থল। ইনি এক জন উচ্চপদস্থ সন্রাস্ত লোকের পুত্র। রোম নগরে এক প্রকার উচ্চপদ ছিল? সন্ত্রাস্ত লোক ন! হইলে কেহই এই পদ প্রাপ্ত হইতেন না। দেশীয় লোকের রীতি, নীতি, আয়, ব্য় প্রভৃতি পর্য্য।লোচনা করি- বার ভার তীহাঁরই উপর অর্পিত হইত মাসসের পিতা নিজ্ গুণে এই পন প্রাপ্ত হন। তাহার মৃত্যুর পর ক্রোশস্ও পদ গ্রাপ্ত হইয়া নিজার পম্পের সমকক্ষ হুইয়। ছিলেন। ভাহার অনেক গুলি সন্গু,ণ ছিল? কিন্তু এক অসঙ্গত অর্থ ভৃষণার প্রভাবে তাহারা মলিন হীনপ্রভ হইয়৷ পড়ে। অতিথি ষৎকারে তাহার বড় অন্থরাগ ছিল। দ্বারস্থ শরণাপত্র

কপণতা | হ্লট

অতিথিকে তিনি কখন দুরস্থ বিপন্ন করিতে পারিতেন না। তাহার বক্তৃতা-শক্তি বড় বলবতী ছিল। বজুতাবলে তিনি অনেক সময়ে বদেশের মহোঁপকার সাখন করিয়। ছিলেন তাহার সময়ে রোম রাজ্য একপ্রকার অরাজক হইয়া উঠিয়। ছিল। নিরপরাধ ব্যক্তিরা অপরাধী বলিয়! দাগুত হইলে, যুক্তি-গর্ভ বচন-পরিপাট দ্বার তিনি .বিচারকের মনে তাহ- দিগের নির্দোবতা প্রমাণ করাইয়৷ তাহাদিগের প্রাণ রক্ষা করি- তেন। বিনয়-নহত1 ও৭ও তাহার যথেষ্ট ছিল। তিনি এক- জন অ'ত উচ্চপদস্থ লোক হইলেও সামান্ত ব্যক্তির নমস্কার গ্রহণ করিয়া প্রতি-নমস্কারেও পরাম্থুখ হইতেন ন|। ইতিহাস, দর্শন, বিজ্ঞানশান্ত্রেও তাহার বিজক্ষণ ব্যুৎপত্তি ছিল।

কিন্ত এতাদৃশ সরগ্শালী হইলেও ধনের লোভে তিনি অশ্বদ্ধেয় কর্মে লিপ্ত হইলেও কিছুঘাত্র সঙ্কুচিত হন নাই। তিনি যে অধ্যাপকের নিকট শাহন্ত্রাধ্যয়ন করিতেন, তাহাকে একবার একটা উত্তম পরচ্ছন পরিধান করিতে দিয়া পুনর্ববার তাহা খুলিয়া! লইয়া ছিলেন। ক্যাটিল!ইন্‌ যখন ফড়যন্ত্র করিয়, রোম নগরীর উচ্ছেদনাধনে যত্রবান্‌ হয়, তখন ক্রোশন্ও অর্থাগমের প্রত্যাশায় তাহাতে লিপ্ত হইন্লা ছিলেন। রোমের বিপদ্কাল উপস্থিত হইলে তাহারও সম্পদ্কাল উপস্থিত, হইত রোমে একাধিপত্য সংস্থাপন করিয়া সল্লা. যখন, সর্বস্ব আম্মসাৎ করিতেন, ক্রোশনস্ও তখন ম্মবিধ! পাইয়া স্বল্প মূল্যে তাহা ক্রয় করিয়া লইতেন। রোমের গৃহ সকল কার্ঠ- নির্শিত অতি-সন্নিহিত ছিল। একবার অগ্নি লাগিলে বছুসংখ্যক গৃহ দগ্ধ হইয়া যাইত। অগ্নি লাগিলে গৃহস্থগণ

৩০. প্রবহ্থ-পাঠ।

যখন সর্বনাশ ভয়ে হাহাকার করিত, অর্থগৃর। ক্রোশপৃও তখন মনে মনে অত্যন্ত আহ্লাদিত হইতেন। তিনি গৃহ- স্বামী দিগকে যৎকিঝিৎ অর্থ দিয়া দহামান তন্নিকটবত্তী' অন্তান্ত গৃহ সকল ক্রয় করিতেন। তাহার বহুসংখ্যক কম্ব- কার, হুত্রধর ভান্কর ভৃত্য ছিল। তিনি সকল গৃহের জীর্ণ-সংস্কার করিয়া ভাড়া দিতেন। ক্রোশস্, পম্পি সিজারের সহিত যোগ দিয়! বলপূর্ব্বক দেশ বিভাগ করিয়। লইতেন | খন তিনি পাধিয়/বাসিগণের মহিত যুদ্ধ করিতে যাত্র। করেন, তখন আটিয়স, তাহাকে তথায় যাইতে অনেক নিষেধ করিয়! ছিলেন | কিন্ত ক্রোশদ্‌ তাহাতে কর্ণপাত করিলেন না অব- শেষে তিনি ক্রোশম্বে গতিরোধ করিবার জন্য রোমের বহিদ্বারে ধৃপধুন1 জালাইয়। দিয়া! স্বীয় ইই্-দেবতার নাম উচ্চারণ করিয়! অভিসম্পাত করিতে লাগিলেন রোমে এরূপ সংস্কার ছিল যে, অভিশপ্ত হইজেই ভয় জন্মিবে, এবং ভয় জন্মিলেই সংকল্পিত বিষয় হইতে প্রত্যাবৃত্ত হইবে। প্রত্যাবৃত্ত হওয়া দূরে থাকুক,অবাধে গম্ভবা স্থানে গিয়া তিনি উপস্থিত হইলেন কিন্ত অবশেষে শব্র কর্তৃক একটি বৃহৎ বালুকাময় প্রান্তরে নীত হইয়৷ সপুত্র নসৈন্য নিহত হইলেন। ক্রোশসের ধনলোভেই নিফলম্ক রোম কলফ্কিত হইয়া! ছিল। «লোভেই পাপ পাপেই মৃতু” এই চিরন্তন প্রবাদটি যে' সম্পূর্ণ সত্য সাবান, ক্রোশসের জীবনই তাহার প্রধান নাক্ষ্য স্থল

মিতব্যরিতা

মিতব্যয়িতা |

সম্বান রক্ষ। সৎ্কার্ষ্যে ব্যয় করিবার জন্যই সংসারে অর্থের প্রয়োজন। তত্তিন্ন ইহার অন্ত কোন উপযোগিতা নাই অনেকে অর্থ উপার্জন করিতে সমর্থ, কিন্তু তাঁহার উপযুক্ত ব্যয় করিতে অসমর্থ উপার্জনের সময় যেরূপ বুদ্ধি যত্বের আবপ্তকতা হয়, ব্যয়ের সময়েও সেইরূপ বিবেচন! পরিনাম-দর্শিতার প্রয়োজন হয়। অনাবশ্তক অনুচিত বিষয়ে ব্যয়কু্ঠ হইয়া আবশ্যক উচিত বিষয়ে মুক্তহস্ত হওয়! প্রকৃত মহত্বের লক্ষণ | বিলাস-ক্ষেত্র ধনের শ্মশান-ভূমি ; বিলাদিতায় ধনরাশি যেরূপ শীত্ব ভন্মীভৃত হইয়। যাঁর, অন্য কিহুতেই আর সেরূপ নহে জগতের হিত- সাধনে মুক্তহন্তে সর্ব ব্যয় করিয়! রিক্তহস্ত হওয়াও দৃষণীর় নহেঃ কিন্তু নিক্ষল আমোদ প্রমোদে কপদ্দক-মাত্র ব্যস কর। অতীব গহিত। মিতব্যয়িতাই সম্পন্ন হইবার প্রধান উপায় মিতব্যয়ী হইয়। বিবেচন! পূর্ব্বক সমুদায় আবশ্তক ব্যয় নির্বাহ করা কর্তব্য কিন্ত মিতব্যয়ী হইতে গিয়া ব্যর়কুণ হওয়। উচিত নহে। কৃপণতা অমিত-ব্যয়িত উভয়ই ঘ্বণাকর দোঁষাবহ। যে ব্যক্তি অনুচিত ব্যয়করিয়! বনস্ত ধন নিঃশেধিত করিয়! ফেলে,তাহার পুক্রপৌন্রা- দিগধ যে কেবল পেতৃক ধনে বঞ্চিত হয় এদপ নহে ; তাহাকেও স্বয়ং শেষে কট পাইতে হয়। অমিতব্যয়ীর ম্যায় কপণের পুক্র- পৌত্রাদিগণ ক্রেশ পায় না বটে, কিন্তু নে স্বয়ং ভোগম্থখে বঞ্চিত হয়। অর্থ যেরূপ যত্নে তর্জিত রক্ষিত হয়, তদপেক্ষা অধিকতর যত্বে তাহা ব্যয়িত হওয়া আবশ্তক সংসান্ে অনেক বিপদ আাপদ আছে। পীড়াকালে বা বৃদ্ধাবস্থায় উপ্নর্জন করিবার

২" প্রবন্ধ-পাঠ।

ক্ষমতা থাকে না। অতএব এক্সপ অসময়ের জন্ত উপাঞ্জিত অর্থের কিছু কিছু সঞ্চয় করা কর্তব্য। যাহ! উপাজ্দিত হয়, ভাহার সমুদায়ই যদি ব্যয় করা যায়, তাহা হইলে পরিণামে কষ্ট পাইতে হইবে | সর্ব! ধন/গম ধনাপগমের সাম্য রক্ষা করিয়া চল! উচিত | অন্ঠায় ব্যয় সঙ্কোচ করিয়া যাহাতে অজ্ভিত অর্থ কিয়ৎ পরিমাণে সঞ্চিত হয়,তাহ। লোক মাত্রেরই আবগ্ক নীতিশাব্কারের! কহেন, সঞ্চয়ী ব্যক্তি অবসন্ন হয় না। যাহার এই নীতিবাক্যে অবহেলা করে, তহাদ্দিগকে পরিণামে অশেষ্‌ ক্রেশ ভোগ করিতে হয়। কিন্ত সেই সঞ্চয় চেষ্টা যাহাতে স্তাঃসীম। অতিক্রন করিতে ন। পারে, তদ্িয়েও সবিশেষ দৃষ্টি রাখা কর্তব্য সঞ্চয়-চেষ্ট। অন্ধটিত বলব্তী হইন্েই €লাঁকে কুপণ হইয়া পড়ে নিতব্যসী হইবে, কিন্তু কৃপণ হইও না। কূপণতা| মিতব্যহ্ত। পত্রম্পর বিভিন্ন পরার্থ। কৃপণের সঞ্চয় অভ্যাসজাত, মিতব্যনীব্ন সঞ্চয় ইচ্ছাকুত কৃপণের সঞ্চিত অর্থ তাহার ছুঃখের কারণ, মিতব্যনীত্র *ক্তি অর্থ তাহার স্থখের কারণ। যাহার যেরূপ আয়, তাহার তদন্থুরূপ ব্যয় কর। কর্তবা। আর অপেক্ষা! ব্যর অধিক হইলে পরিণামে নিঃস্ব হইয়া অশেষ ছুঃখ ভোগ করিতে হইবে বাহিরে একপে সত্ত্রম রক্ষা! করিয়। চলিবে যে, লোকে যত মনে করে ত?পেক্ষ। অনেক অল্পব্যয়ে নির্বাহ হয়। কেবল হ্বচ্ছন্দে সংনার যাত্রা নির্বাহ করিতে হইলে আয়ের অর্ধেক বায় করা উচিত? কিন্তু যদি ধনবান্‌ হইবার বাদন। থাকে, তবে তাহার তুতীয়াংশ মার . প্রভূত ধনশালী হইলেও আপনার. রিষয়-সম্পতি আপন্সি

মিতবায়িতা ত৩

পর্যবেক্ষণ করা ক্ষুদ্রতার চিহ্ন নহে। তবে শ্বয়ং অক্ষম হইলে এক জন ধার্মিক ন্থযোগ্য বক্তির হস্তে তাহার ভারার্পণ করা কর্তব্য সর্বদ। আয় বয়ের মান্য রক্ষা কর। উচিত। এক বিষয়ে আঁধক ব্যয়ের আবশ্তকতা৷ হইলে অন্ত বিয়য়েও ব্যয়ের ননতা করিতে হইবে যদ্দি আহারের পারিপাট্য বিষয়ে প্রভৃত ব্যয় কর, তবে পরিচ্ছদের ব্যয় কমাইতে হইবে যদ্দি বাসগৃহের আড়ন্বর প্রকাশ করতে ইচ্ছা কর, তাহা হইলে অশ্ব, শকট যান-বাহনাদ্িক ব্যয় কমান আবশ্তক | এরূপ না করিলে শীগুই উৎসন্ন হইবার সম্পূর্ণ সম্ভাবনা জনেকে খণ করিয়। ব্যয় করিয়া থাকেন। কিন্তু এরূপ করা৷ অতি অন্তায় খণী ব্যক্তির খণ